Monitor কী এবং মনিটরের প্রকারভেদ? এবং Monitor-এর কাজ কী?

0
23
Monitor-কী-এবং-মনিটরের-প্রকারভেদ-এবং-Monitor-এর-কাজ-কী

আপনি কি জানেন কম্পিউটার মনিটর কী? (Monitor in Bengali) সম্ভবত আপনি এটি সম্পর্কে শুনেছেন। কারণ আমরা সকলেই এই কম্পিউটার মনিটরের সাথে খুব পরিচিত। আমরা আমাদের বেশিরভাগ সময় এই মনিটরের সামনে যেমন Gaming, Movies দেখি এবং অন্যান্য অনেক কিছু আমরা Monitorএর সামনে বসে থাকি। একই পদ্ধতিতে মনিটরটি Computer System-এ ডিসপ্লে ইউনিট (Display Unit) হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

একটি ভাল প্রদর্শন যে কোনও ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতায় কার্যকর হতে পারে। ডিসপ্লে প্রযুক্তিগুলির উদ্ভাবনের কারণে ডিসপ্লে ডিভাইসগুলির বৈশিষ্ট্যগুলিও উল্লেখযোগ্যভাবে উন্নত হয়েছে।Desktop Computers-গুলি এখন CRT Monitors-র মতো প্রযুক্তির ব্যবহার থেকে latest slim LCD, LED এবং OLED Monitors ইত্যাদির জন্য বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশনে উপলব্ধ Desktop Luminance, Contrast Ratio, Resolution, Dot Pitch, Response Time, Refresh Rate এবং Power Consumption এর মতো মনিটরের কার্যকারিতা পরিমাপ করার জন্য অনেকগুলি পরামিতি রয়েছে। এছাড়াও মনিটরগুলিতে প্রায়শই দেখা দেয় এমন সাধারণ সমস্যা হ’ল Dead Pixels, Blurred Screen, Phosphor-Burn ইত্যাদি। আপনি যে জিনিসগুলি জানেন না তা আপনি জানতেও সক্ষম হবেন। তাহলে আর দেরি না করে চলুন শুরু করা যাক এবং জেনে নেওয়া যাক Monitor কী এবং মনিটরের প্রকারভেদ? এবং Monitor-এর কাজ কী?

Monitor কী – (What is Monitor in Bengali)

Monitor একটি আউটপুট ডিভাইস (Output Device)।একে ভিজ্যুয়াল ডিসপ্লে ইউনিটও ( Visual Display Unit ) বলা হয়। এটি টিভির মতো দেখতে। একটি মনিটর হ’ল অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ আউটপুট ডিভাইস। এটি ছাড়া কম্পিউটারটি অসম্পূর্ণ। এটি তার স্ক্রিনে Soft Copy হিসাবে আউটপুট প্রদর্শন করে। মনিটর দ্বারা প্রদর্শিত রঙের উপর ভিত্তি করে তিন প্রকার রয়েছে।

#1. একবর্ণ (Monochrome)

এই শব্দটি দুটি শব্দ মনো (Single) এবং ক্রোম (Chrome) অর্থাৎ রঙ (Color) দ্বারা গঠিত, তাই একে Single Color Display বলা হয় এবং এটি মনিটরের আউটপুটটিকে Black & White হিসাবে প্রদর্শন করে।

#2. গ্রে-স্কেল (Gray-Scale)

এই মনিটরগুলি একরঙার অনুরূপ তবে এটি (Gray Shades) যে কোনও ধরণের প্রদর্শন প্রদর্শন করে তাই এই ধরণের মনিটরগুলি বেশিরভাগ হ্যান্ড কম্পিউটারে যেমন (Laptop) হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

#3. রঙ মনিটর (Color Monitors)

এই ধরণের মনিটর আউটপুটটিকে RGB (Red Green Blue) রেডিয়েশনের সামঞ্জস্য হিসাবে প্রদর্শন করে নীতিমালার কারণে এ জাতীয় মনিটর উচ্চ রেজোলিউশনে গ্রাফিক্স প্রদর্শন করতে সক্ষম (যেমন কম্পিউটারের মেমরির মনিটর) 16 থেকে 16 লক্ষ শুরু করে রঙগুলিতে আউটপুট প্রদর্শন করার ক্ষমতা রয়েছে।

মনিটরের ইতিহাস – Monitor History

কম্পিউটিংয়ের প্রথম দিনগুলিতে মনিটর (Monitor) নামে আমাদের কোনও আউটপুট ডিভাইস ছিল না। তারপরে কাগজটি কম্পিউটারের সাথে যোগাযোগের জন্য ব্যবহৃত হত। পাঞ্চ কার্ড মেশিন (Punch Card Machines) ব্যবহার করে কার্ডগুলিতে নির্দেশনা টাইপ করা হয়, যা কম্পিউটার তাদের পড়তে দেয়। অর্থাৎ যা কিছু উৎপাদিত হয়েছিল, আমরা তা কাগজে Print করতাম।

প্রথম Computer Monitor-টি CRT Technology ব্যবহার করে 1922 সালে তৈরি হয়েছিল। এই প্রযুক্তিটি Television Screen তৈরিতেও ব্যবহৃত হত। যদিও এগুলি আকারে বেশ বড় এবং ভারী ছিল। এর পরে, প্রায় 2000 সালে LCD Technology ব্যবহার করা শুরু হয়েছিল। আজকাল বেশিরভাগ ডিসপ্লেতে এই প্রযুক্তিটি ব্যবহার করা হচ্ছে। এর বাইরে বাজারে একটি নতুন ধরণের ডিসপ্লে টেকনোলজি OLED উপস্থিত রয়েছে।

মনিটরের আবিষ্কার কে? – Who invented the monitor?

1897 সালে প্রথম ক্যাথোড রে মনিটর (Cathode Ray Monitor) আবিষ্কার করেছিলেন কার্ল ফারডিনান্ড ব্রাউন (Karl Ferdinand Braun) যখন তিনি প্রথম Cathode Ray Tube Invent আবিষ্কার করেছিলেন।

CRT-র সহায়তায় আমরা স্ক্রিনে একটি ভিডিও দেখতে সক্ষম হয়েছি। 1942 সালে, দু’জন লোক মিলে আমেরিকায় প্রথম “Automatic Electronic Digital Computer” গঠন করেছিলেন যার নাম ‘Atanasoff-Berry Computer‘।

মনিটরের প্রকারভেদ – Types of Monitor in Bengali

নিম্নলিখিত বিভিন্ন ধরণের মনিটর রয়েছে:

CRT Monitor: CRT (Cathode Ray Tube) সর্বাধিক ব্যবহৃত ভিডিও প্রদর্শনে এর নাম পেয়েছে। তারা ছবিটি Black & White দেখাত। এই মনিটরের সাথে, ফ্লুরোসেন্ট স্ক্রিনে (Fluorescent Screen) চিত্রটি তৈরি করতে উচ্চ শক্তির বৈদ্যুতিনগুলির (High Energy Electrons) একটি প্রবাহ ব্যবহৃত হয়েছিল। এই ক্যাথড রে টিউবটি হুবহু ভ্যাকুয়াম টিউবের (Vacuum Tube) মতো, যার একদিকে Electron Gun এবং অন্যদিকে Fluorescent Screen রয়েছে। আজকের সময়ে এগুলি খুব কমই পাওয়া যায় তবে এর আগে এগুলি সর্বাধিক ব্যবহৃত হত।

CRT (Cathode Ray Tube)

LCD Monitor: আজকের ডিসপ্লে প্রযুক্তিতে LCD বা liquid crystal display  সর্বাধিক ব্যবহৃত হয়। এই মনিটরগুলি liquid এবং Solid Matter-এর সংমিশ্রণে তৈরি করা হয়। LCD স্ক্রিনে একটি চিত্র তৈরি করতে একটি Liquid crystals ব্যবহার করে। LCD দেখতে খুব পাতলা এবং হালকা। এই প্রযুক্তিটিই ক্যাথোড রশ্মির নলটিকে (Cathode Ray Tube) প্রতিস্থাপন করেছিল। এই স্ক্রিনগুলিতে সাধারণত color বা Monochrome Pixels-এর একটি স্তর থাকে যা স্বচ্ছ ইলেক্ট্রোডের (Transparent Electrodes) একটি জোড়া এবং দুটি পোলারাইজিং ফিল্টারগুলির (Polarizing Filters) মধ্যে সজ্জিত।

Liquid Crystal Display (LCD)
Liquid Crystal Display (LCD)

LED Monitor: এটি আজকের আধুনিকতম প্রযুক্তি বা আমরা একে LCDs monitor -এর আপগ্রেড সংস্করণও বলতে পারি। এটি ফ্ল্যাট-প্যানেল (Flat Panel) এবং উপস্থিতিতে Slightly Curved Display। তারা Back lighting-য়ের জন্য Light-Emitting Diodes ব্যবহার করে। LED এবং LCD -এর মধ্যে পার্থক্য কেবল Backlighting। তাদের সুবিধাগুলির মধ্যে একটি হ’ল এলইডি মনিটররা উচ্চ বিপরীতে চিত্র তৈরি করে Produce এগুলি অন্যান্য মনিটরের চেয়ে বেশি টেকসই এবং কম তাপও উৎপাদন করে।

Light Emitting Diodes (LED)
Light Emitting Diodes (LED)

 

Plasma Monitor: এটি একটি Flat Panel Display, যা একটি চিত্র তৈরি করতে Charged Gases ছোট ছোট ঘর ব্যবহার করে। এই Plasma Cells তাদের নিজস্ব illumination তৈরি করে, অর্থাৎ separate backlighting-য়ের প্রয়োজন নেই।LCD monitor-র চেয়ে প্লাজমা মনিটর ভারী। এটি দুর্দান্তভাবে চিত্রের উজ্জ্বলতা এবং বৈসাদৃশ্যকে ভারসাম্য বজায় রাখতে সক্ষম। এটিও এর সবচেয়ে বড় সুবিধা। এগুলি সাধারণত বড় টিভি প্রদর্শন হিসাবে ব্যবহৃত হয়। এটি প্রায় 30 ইঞ্চি বা তার বেশি আকারের।

OLED Monitor: OLED মানে organic light-emitting diode । এটি একটি High Display Technology। যার Picture Quality অনেক বেশি ভাল। এটি LCD এবং Plasma Display তুলনায় বিভিন্ন স্ক্রিন প্রযুক্তি ব্যবহার করে। Carbon এবং জৈব যৌগের মতো অন্যান্য উপাদান এতে রঙ তৈরি করতে ব্যবহৃত হয়। এখন কারণ এটি ব্যাকলাইটিং প্রয়োজন হয় না। এজন্য OLED কে Emissive Technology হিসাবে বিবেচনা করা হয়। তবে বাজারে এটি এখনও সাধারণ নয়।

Touchscreen Monitor: এই ধরণের মনিটর Digital Smartphone-র মতো কাজ করে। এটির বৈশিষ্ট্যগুলি ব্যবহার করতে আপনাকে কেবল স্ক্রিনটি স্পর্শ করতে হবে। আজ, Industry Devices-এ তাদের জনপ্রিয়তা দ্রুত বাড়ছে। ATMs-তেও এই ধরণের মনিটর ব্যবহৃত হয়। এখন যেমন আধুনিক প্রযুক্তির চাহিদা বাড়ছে তেমনি ল্যাপটপ এবং পিসিতেও Touchscreen Display Technology উন্নীত হচ্ছে।

মনিটরের কি কাজ করে?

একটি Computer Monitor হ’ল এক ধরণের Display Adapter যা কম্পিউটারের Video card থেকে Processed তথ্য প্রদর্শন করে। যখন কোনও Video Card বা Graphics Card বাইনারি তথ্যকে (Binary Information) 1 এবং 0s  থেকে চিত্রগুলিতে রূপান্তরিত করে, তখন চিত্রগুলি Connected Monitor-এ সহজে এবং সরাসরি প্রদর্শিত হতে পারে।

Monitor-এর কাজ কী?

সুতরাং, Computer Monitor-এর মূল কাজটি হ’ল ভিডিও এবং Graphical Information যা কম্পিউটারের Graphics adapter থেকে উৎপন্ন হয় তা প্রদর্শন করা। এটি ব্যবহারকারীকে কম্পিউটারের সাথে Interact করতে দেয়। এটি একটি Output Device অনুযায়ী শ্রেণিবদ্ধ করা হয়। একটি মনিটর পুরো Computer System-এর একটি খুব গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এটিকে কখনও কখনও Video Display Unit (VDU) বলা হয়।

টেলিভিশন এবং মনিটরের মধ্যে পার্থক্য

প্রায়শই লোকেরা কম্পিউটারের স্ক্রিন হিসাবে HDTV ব্যবহার করে। তবে এই দুটি ডিভাইসই একে অপরের থেকে একেবারেই আলাদা। এটি চেহারাতে একই রকম দেখতে পারে তবে বৈশিষ্ট্য এবং আকারের ক্ষেত্রে তাদের মধ্যে একটি বড় পার্থক্য রয়েছে। নীচে কিছু পয়েন্ট পড়ে আপনি তাদের মধ্যে পার্থক্য বুঝতে পারবেন।

  1. বৃহত্তম পার্থক্যটি আকার, যেখানে টিভিগুলি একটি বিশাল আকারে আসে। একই মনিটরটি ছোট আকারে উপলব্ধ।
  2. টিভিতে USB, VGA, HDMI সহ বিভিন্ন বন্দর অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। যদিও মনিটরের চেয়ে কম বন্দর রয়েছে।
  3. টিভির তুলনায় এর দাম কম।
  4. উভয়ই High-Resolution Image তৈরি করে।
  5. মনিটরের Response Time Milliseconds। যা টিভির চেয়ে অনেক ভাল। বিশেষত Gaming Perpose-এর জন্য, এর অর্থ অনেক বেশি।
  6. কম্পিউটার মনিটরে tuner এবং Inbuilt speaker নেই, অন্যদিকে টিভিতে এই বৈশিষ্ট্য রয়েছে।
  7. তাদের Refresh Rate টিভির চেয়ে ভাল।
  8. Clour accuracy-এর ক্ষেত্রে টিভি বেশিরভাগ ক্ষেত্রে পিছনে।

একটি টিভি বিনোদনের জন্য তৈরি করা হয়, সুতরাং এতে উপস্থিত বৈশিষ্ট্যগুলিও মাথায় রাখা হয়েছে। তাই কোনও টিভিতে কম্পিউটার প্রদর্শন দেওয়া কোনওভাবেই ঠিক নয়।

উপসংহার

এই পোস্টে, আমরা আপনাকে “ Monitor কী এবং মনিটরের প্রকারভেদ? এবং Monitor-এর কাজ কী? ” -এর সম্পর্কে সম্পূর্ণ তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করেছি। আশা করছি এই পোস্টটি আপনাদের ভালো লাগবে, আর ভালো লাগলে পোস্টটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন এবং আপনার যদি এই পোস্ট সম্পর্কিত কোনও প্রশ্ন থাকে তবে আপনি আমাদের কমেণ্ট বক্সের মাধ্যমে জিজ্ঞাসা করতে পারেন। আমি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আপনার প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব।

আরও পড়ুনঃ

» কম্পিউটার প্রজন্মের ইতিহাস | Generation of Computer in Bengali

» জয়স্টিক কী? জয়স্টিকের ব্যবহার | What is Joystick in Bengali

» সোশ্যাল মিডিয়া কী এবং এর সুবিধাগুলি এবং অসুবিধাগুলি কী কী

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here